অ্যালুমিনিয়াম কারখানা নির্মম পরিহাসে শ্রমিক অভিযাত্রা

প্রকাশিত: ৪:৫৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৬, ২০২০

হালদা-২৪ ডেস্ক :
প্রথম ক্রমবর্ধমান উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ ধীরে ধীরে তার বাণিজ্য ও শিল্পে সমৃদ্ধ হচ্ছে এবং একই সাথে শিল্প ও কারখানাগুলোতে শ্রমিকের সংখ্যা ও বাড়ছে।তবে দেশ তার শিল্পগুলোতে পেশাগত স্বাস্থ্য এবং সুরক্ষার ঝুঁকির মুখোমুখি। দরিদ্র পেশাগত সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যের অবস্থার কারণে বিপুল শ্রমিক তাদের মূল্যবান জীবন হারিয়েছে এবং আহত হয়েছে বা হচ্ছেন। যদিও বাংলাদেশে প্রতিবছর কতজন শ্রমিক পেশাগত রোগ এবং দূর্ঘটনায় ভুগছেন সে সম্পর্কে কোনও সরকারী তথ্যের উৎস নেই, Bangladesh Institute of labour studies (BILS) নিউজপেপারের জরিপ অনুসারে, ২০০২ -২০১২ সালের মধ্যে ৫৯০৯ জন শ্রমিক মারা যায়, ১৪৪১৩ শ্রমিক কারখানাজনিত বিভিন্ন কাজে আহত হয়েছেন। এছাড়াও এই সমীক্ষায় দেখা গেছে, ২০১২ সালে সারা দেশে বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রের দুর্ঘটনার কারণে ৭০৮ শ্রমিক মারা গিয়েছিল।
অন্যদিকে আমরা যদি অ্যালুমিনিয়াম কোম্পানিগুলোর দিকে তাকাই তবে দেখতে পাব যে ,অ্যালুমিনিয়ামের ব্যবহারের ক্ষেত্রে পৃথিবীতে অ্যালুমিনিয়াম হল সর্বাধিক পরিমাণে ব্যবহারকৃত ধাতব পদার্থ এবং বাংলাদেশে ও এটির প্রচুর পরিমাণ ব্যবহার হয়ে থাকে, যেখানে বাংলাদেশে চট্টগ্রাম এবং ঢাকা বিভাগ মিলে মোট ৮টি ব্রান্ডের ৭টি অ্যালুমিনিয়াম কোম্পানি রয়েছে এবং সেসব কোম্পানিতে প্রচুর শ্রমিক কাজ করে থাকে। তবে দেখা যায় সেসব কোম্পানিতে কর্মরত শ্রমিকদের সাস্থ্য ঝুঁকি থাকে অনেক বেশি। যেমন তারা যেসব স্বাস্থ্য ঝুঁকির সম্মুখীন হয়ে থাকে তা হল তাদের শাসন ব্যবস্থায়, ক্যানসার ঝুঁকি থাকা, স্নায়ুতন্ত্রের সমস্যা, রক্ত সঞ্চালন সিস্টেমে বাধা সৃষ্টি হওয়া, কঙ্কালের পেশিজনিত সমস্যা দেখা দেওয়া , অন্তঃস্রাব্য সিস্টেম ব্যহত হওয়া, ত্বক ও চোখের সমস্যা হওয়া এবং শরীরের ওজনে সহ আরো নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকে।তবে এসব কারখানায় কর্মরত শ্রমিকরা কাজের পরিবেশ অনুসারে বেশিরভাগই শ্বাসকষ্টজনিত রোগে এবং মুত্রাশয় এবং ফুসফুস ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে থাকে। এই জরীপে আরো বলা হয়েছে যে, অ্যালুমিনিয়ামের সংস্পর্শে আসা শ্রমিকরা স্বাভাবিক ব্যক্তির তুলনায় প্রভাবগুলোর উপর ৩১ বার ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। তাই শ্রমিকদের কথা বিবেচনা করে পরিশেষে, এটাই বলা যায় যে, শ্রমিকরা তাদের কাজের পরিবেশে এইসব সমস্যারই সম্মুখীন যাতে হতে না হয় তার জন্য অ্যালুমিনিয়াম কোম্পানির মালিকরা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য  সুরক্ষার কথা বিবেচনা করে ঝুঁকি প্রতিরোধমূলক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এবং বাংলাদেশের পেশাগত স্বাস্থ্য এবং সুরক্ষা সম্পর্কীত প্রধান আইন ২০০৬ রয়েছে, সেখানে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য, সুরক্ষা সম্পর্কীত যেসব বিধান রয়েছে তা শ্রমিক মালিক উভয়ই মেনে চলবে। তাহলে শ্রমিকরা এসব ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাবে বলে আমরা মনে করি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Share via
Copy link
Powered by Social Snap