ছাত্র বিক্ষোভের মুখে হেফাজত আমীর আল্লামা শফীপুত্র আনাস মাদানীকে মাদরাসা থেকে বহিষ্কার

প্রকাশিত: ১:৩৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০

হালদা-২৪ ডেস্ক :

আন্দোলনের মুখে হেফাজতে আমীর ও হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীর পুত্র কেন্দ্রীয় হেফাজতের প্রচার সম্পাদক ও মাদরাসার সহকারী শিক্ষা পরিচালক মাওলানা আনাস মাদানীকে হাটহাজারী মাদরাসা থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।
বুধবার রাত পৌনে ১১টার সময় এমন ঘোষনা করা হয়। দিনভর ছাত্রদের আন্দোলনের মুখে অনুষ্ঠিত শূরার এক জরুরী বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।শূরার বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, ফটিকছড়ি নানুপুর ওবাইদিয়া মাদ্রাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা সালাউদ্দিন, হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক শূরার সদস্য মাওলানা নোমান ফয়েজী ও মাওলানা ওমর ফারুক।
বুধবার দুপুরে জোহরের নামাজের পর থেকে আনাস মাদানীর অপসারণসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে মাদরাসার সব ফটক বন্ধ করে ভিতরে আন্দোলন শুরু করে কয়েক হাজার ছাত্র । খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পুলিশ, র‍্যাব, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছালেও মাদরাসার সব ফটক বন্ধ থাকায় ভিতরে প্রবেশ করতে পারেনি। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সতর্কবস্থায় বাইরে অবস্থান নেয় তারা । তবে, প্রশাসন যাতে মাদরাসার ভিতরে ঢুকে কোনোধরনের হস্তক্ষেপ না করে সেজন্য মাদরাসার ছাত্ররা মসজিদের মাইকে বারবার মাইকিং করছিলেন।
বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বলেন, বিশেষ করে ৬টি দাবীর মধ্যে দুটি দাবি পূরণ করেছে শূরা কমিটি। বিষয়টি শূরা কমিটির স্বাক্ষরিত পত্রে সবাইকে আবারো নিশ্চিত করে জানানো হবে এবং শনিবার শুরার পরবর্তী বৈঠক বসবে বলে আশ্বাস দেয়া হয়।
আল্লামা আহমদ শফী শারীরিকভাবে অক্ষম হওয়ায় পরিচালক পদ থেকে তাঁকে সম্মানজনক অব্যাহতি দিয়ে উপদেষ্টা করার দাবী রয়েছে বিক্ষোভকারীদের । অন্যান্য দাবীর মধ্যে শিক্ষকদের পুর্ণ অধিকার ন্যস্ত করার দাবী রয়েছে ।
ছাত্রদের আন্দোলন চলাকালে মাদরাসার ভিতরে মাওলানা আনাস মাদানীসহ ৩ জন শিক্ষকের কক্ষ ভাঙচুর করা হয়। শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করা হয়েছে হেফাজত নেতা মঈনুদ্দিন রুহিকেও।
বুধবার রাত ১১টার পর মাওলানা আনাস মাদানীকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার ঘোষনা দেয়ার পর মাদরাসার সার্বিক পরিস্থিতি ক্রমশঃ শান্ত হয়ে আসে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Share via
Copy link
Powered by Social Snap