বেতার কর্মকর্তা আমান উল্লাহ মাসুদ হাসানের মৃত্যু : শোক প্রকাশ

প্রকাশিত: ৮:৪৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৮, ২০২০

বেতার কর্মকর্তা আমান উল্লাহ মাসুদ হাসানের মৃত্যু : শোক প্রকাশ
হাসান মেহেদী :
বাংলাদেশ বেতারের অন্যতম একটি জনপ্রিয় ও শ্রোতানন্দিত অনুষ্ঠান “জনসংখ্যা স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সেল”- এর পরিচালক আমান উল্লাহ মাসুদ হাসান আর নেই। গতকাল (১৭ অক্টোবর) ভোররাত সাড়ে তিনটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান ( ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলায়হি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৫৬ বছর। আমান উল্লাহ মাসুদ হাসান বিসিএস (তথ্য) ক্যাডারের ৯ম ব্যাচের কর্মকর্তা ছিলেন।
এদিকে, বেতার কর্মকর্তা আমান উল্লাহ মাসুদ হাসানের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিভিন্ন শ্রেনিপেশার বিশিষ্টজনেরা। তাঁরা মরহুমের আত্মার শান্তি কামনা এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন। শোক প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, তথ্য সচিব কামরুন নাহান, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক হোসনে আরা তালুকদার প্রমুখ। তাঁর মৃত্যুতে আরো শোক জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বাণিজ্যিক কার্যক্রম বাংলাদেশ বেতারের পরিচালক ও সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব বাংলাদেশ এর প্রধান উপদেষ্টা ড. মির শাহ আলম, উপদেষ্টা ও একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া, উপদেষ্টা ও চীন আন্তর্জাতিক বেতার (সিআরআই) বাংলা বিভাগের সাবেক বিশেষজ্ঞ আবাম ছালাউদ্দিন, উপদেষ্টা ড. সালেহা কাদের, উপদেষ্টা ও সাবেক বেতার কর্মকর্তা আবু তাহের রায়হান, উপদেষ্টা মাহাবুবুল মাওলা রিপন, উপদেষ্টা ও জয়যাত্রা টেলিভিশনের অনলাইন সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন আশরাফ, সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান দিদারুল ইকবাল, ভাইস চেয়ারম্যান তাছলিমা আক্তার লিমা, মহাসচিব এম. ফোরকান, চট্টগ্রাম শাখার সাধারণ সম্পাদক নুর মোহাম্মদ, যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদ হায়দার জীবন, প্রচার সম্পাদক মো. মোবারক হোসেন ভূঁইয়া, সদস্য ইঞ্জিনিয়ার শাহীন চৌধুরী, মো. আজিম ভূঁইয়া ও মো. ইউসুফ, চট্টগ্রাম সন্দ্বীপ শাখার রিনা বেগম, চট্টগ্রাম বাকলিয়া থানা শাখার সভাপতি মো. রহমত উল্লাহ, বায়েজিদ বোস্তামী থানা শাখার সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন খান জুয়েল, সীতাকুন্ড উপজেলা শাখার সভাপতি আসমা আক্তার, রাউজান উপজেলা শাখার সভাপতি নয়ন বড়ুয়া, সিলেট জেলা শাখার সভাপতি মো. চাঁন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মো. জসীম উদ্দীন, সিলেট লাক্কাতুরা চা বাগান শাখার সভাপতি বিক্রম রায়, কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি মো. আব্দুল হালিম, কুমিল্লা লালমাই উপজেলা শাখার সভাপতি সায়মা মজুমদার, টাঙ্গাইল জেলা শাখার সভাপতি মো. সোলায়মান হোসেন, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি এম এ ছালাম, ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সভাপতি আবিদা সুলতানা ডালিয়া, রাঙ্গামাটি জেলা শাখার মো. ফারুক হোসেন, শরীয়তপুর জেলা শাখার ইসমাইল হোসেন সাগর ও মো. রফিকুল ইসলাম, ঢাকার মো. ইয়াকুব আলী, এ কে এম নাসির উদ্দিন ও লাবীব ইকবাল, রাজবাড়ী জেলা শাখার কবিরুল ইসলাম মিঠু ও শাওন খান, সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মো. আরিফুল ইসলাম, পাবনা জেলা শাখার আসাদুজ্জামান নূর, সাতক্ষীরা জেলা শাখার সভাপতি এস এম আক্তারুল ইসলাম, নেত্রকোণা জেলা শাখার সভাপতি তানজিলা আক্তার রুমা, সিআরআই লিসনার্স ক্লাব অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সৈয়দ রেজাউল করিম বেলাল ও ভাইস চেয়ারম্যান মো. ওসমান গণি, গাজীপুর রেমাশ আন্তর্জাতিক বেতার শ্রোতা সংঘের সভাপতি মো. শহীদুল কায়সার লিমন, ফরিদপুর ওয়ার্ল্ড রেডিও লিসনার্স ক্লাবের সভাপতি এম এম গোলাম সারোয়ার, কুষ্টিয়া সিএসডব্লিউ শ্রোতা সংঘের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ।
বিবৃতিতে তাঁরা উল্লেখ করেন, আমান উল্লাহ মাসুদ হাসান সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশের সাথে গভীরভাবে জড়িত ছিলেন এবং ক্লাবের বিভিন্ন কার্যক্রমের খোঁজ খবর রাখতেন। তিনি ক্লাবের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণও করেছেন। তাঁর সাথে শ্রোতাদের হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক ছিলো। আমান উল্লাহ মাসুদ হাসানের মৃত্যুতে সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশ তার একজন অকৃত্রিম বন্ধুকে হারালো। উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ১৫ নভেম্বর জনসংখ্যা স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সেল একটি প্রকল্প হিসেবে যাত্রা শুরু করে। যাত্রার পর থেকেই এটি দেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করে এবং জনগণের মধ্যে অধিক জনসংখ্যার কুফল সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টিতে ব্যাপক সফলতা অর্জন করে। পরবর্তী সময়ে এর গুরুত্ব অনুধাবণ করে সরকার ১৯৯৮ সালের ১ জুলাই এই প্রকল্পটি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্ত করে। বর্তমানে এটি শেরেবাংলা নগরস্থ জাতীয় বেতার প্রশাসনিক ভবনের ৪র্থ তলা থেকে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন জনসংখ্যা স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সেক্টর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ বেতারের জনসংখ্যা স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সেল পরিকল্পিত পরিবার গঠন ও স্বাস্থ্য সচেতনতা তৈরিতে শ্রোতানন্দিত নানা অনুষ্ঠান প্রচার করে আসছে। প্রধান সেল ও উপ-সেল থেকে গড়ে প্রতিদিন ৩৬০ মিনিট অনুষ্ঠান প্রচার হয়। জনসংখ্যা স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সেল থেকে নাটক, গান, জিঙ্গেল, ম্যাগাজিন, আলোচনা, কথিকা, প্রামাণ্য অনুষ্ঠান, ফোন ইন, ইত্যাদি আঙ্গিকে অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়ে থাকে। মানিকচাঁন্দের কিসসা, পারুলের সংসার, জরিনার সুখ দুঃখ, জীবনের বায়োস্কোপ, জীবনের গল্প ইত্য্যাদি ধারাবাহিক নাটক ব্যাপক শ্রোতা জনপ্রিয়তা অর্জন করে। ফোন ইন অনুষ্ঠান চিঠিপত্রের জবাবের অনুষ্ঠান ডাকবাক্স, স্বাস্থ্যবিষয়ক চিঠিপত্রের জবাবের অনুষ্ঠান “আপনি কেমন আছেন?” অনুরোধের আসর, কথায় গানে সংগীতমালা, আমাদের কথা আমাদের গান ইত্যাদি অনুষ্ঠান শ্রোতাদের নিকট ব্যাপক জনপ্রিয়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Share via
Copy link
Powered by Social Snap