মুখোমুখি অবস্থানে ফটিকছড়ি আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপ

প্রকাশিত: ১:১৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০২০

মুখোমুখি অবস্থানে ফটিকছড়ি আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপ

 

হালদা-২৪ ডেস্ক :

ফটিকছড়ির নানুপুর ও সুয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দুই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বিজয় হয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন, নানুপুরে শফিউল আজম সুয়াবিলে জয়নাল আবেদিন। বিজয়ের পর দুই নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফটিকছড়ির সাংসদ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী ও উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ.এম আবু তৈয়বকে ফুলের মালা দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। শুভেচ্ছা বিনিময়কালে সাংসদ বলেন, সুষ্ট নির্বাচন হলেই নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত তার প্রমান মিলেছে। এসময় তিনি নির্বাচিতদের অভিনন্দন জানান। এরপর উপজেলা চেয়ারম্যান হুসাইন মোঃ আবু তৈয়বের মতামত জানতে চাইলে তিনি নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের অভিনন্দন জানিয়ে ক্ষুব্দ প্রতিক্রিায় বলেন, নানুপুরের ঢালকাটা কেন্দ্রটি আলহাজ রফিকুল আনোয়ারের কেন্দ্র। এখানে নৌকার সুচনীয় পরাজয় হয়েছে। যা নৌকার এই স্বণার্লী যুগে অত্যান্ত লজ্জাজনক। এসময় তিনি উক্ত কেন্দ্রে নৌকা পরাজিত হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় মহিলা সাংসদ খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দীন মুহুরী, উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বখতিয়ার সাইদ ইরান ও নুরুন্নবী রওশনকে দোষারুপ করেন। তিনি বলেন, নুরুন্নবী রওশন একজন নারী ব্যবসায়ী তাকে সন্ত্রষ্ট করতে নাজিম মুহুরী সু-কৌশলে নৌকাকে পরাজিত করেছে। এদিকে উপজেলা চেয়ারম্যানের এমন বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হন উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবন্দ। এমন বক্তব্য রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভুত উল্ল্যেখ করে উপজেলা আ”লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দীন মহুরী সাংবাদিকদের সাথে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন। এতে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যানের এমন বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেন বলেন, দিনরাত পরিশ্রম করে নানুপুরের নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করেছি আমরা। নৌকা কারো বাবার সম্পত্তি না। তিনি আরো বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ফটিকছড়িকে দোকান বানিয়ে ব্যবসা শুরু করেছেন। দুই নেতার পাল্টাপাল্টি এমন বক্তব্যকে কেন্দ্র করে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপ। ফলে সোস্যাল মিড়িয়ায়ও চলছে ব্যাপক বাকবিতন্ডা। এতে করে আওয়ামীলীগের দীর্ঘ দিনের কোন্দল আবারো প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। দুইপক্ষই পাল্টাপাল্টি দোষারোপ করছেন একে অপরকে। এদিকে দলীয় নেতাদের কটুক্তির প্রতিবাদে ফটিকছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের ব্যানারে বিবিরহাটে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে। মিছিলে উপজেলা চেয়ারম্যান হুসাইন মোঃ আবু তৈয়বকে কটাক্ষ করে বিভিন্ন স্লোগান দেন নেতাকর্মীরা। এর বিপরিতে আজাদী বাজার, কাজিরহাটে এইচ.এম আবু তৈয়বের কটাক্ষের প্রতিবাদে কিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। সেখানে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দীন মহুরীকে নিয়ে কটাক্ষমূলক স্লোগান ও তার কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। দীর্ঘদিন ধরে ফটিকছড়ি আওয়ামীলীগে দুটি ধারা রয়েছে। একটির নেতৃত্বে আছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ আবু তৈয়ব। তার পক্ষে আছেন তরিকত ফেডারেশন থেকে নির্বাচিত সাংসদ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল আলম বাবুসহ আরো কয়েকজন সিনিয়র নেতা। আরেকটি পক্ষের নেতৃত্বে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন মুহুরী। তার সঙ্গে আছেন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এ টি এম পেয়ারুল ইসলাম ও আওয়ামী লীগের প্রয়াত সাংসদ রফিকুল আনোয়ারের মেয়ে খাদিজাতুল আনোয়ার সনিসহ আরো কয়েকজন সিনিয়র নেতা। এদিকে নির্বাচন পরবর্তি বক্তব্যকে ঘিরে আবারো উত্তাপ হয়ে উঠছে এ অঞ্চলের আওয়ামী রাজনীতি। দলীয় কোন্দল গ্রুপিং এখন আরো প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। এর জের ধরে ফটিকছড়ি রাজনীতিতে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এতে করে যে কোন সময় সংঘাত ও রক্তপাতের ঘটনার আশংকা করছেন সচেতন মহল।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Share via
Copy link
Powered by Social Snap